Skip to main content

Posts

Showing posts from 2017

টমাস আলভা এডিসন

টমাস আলভা এডিসন ছিলেন মার্কিন বিজ্ঞানি। টমাস আলভা এডিসন ১৮৪৭ সালের ১১ই ফেব্রুয়ারি  যুক্তরাষ্ট্রের ওহিও, মিলানে

জন্মগ্রহন করেন।  তিনি বৈদ্যুতিক বাতি, গ্রামোফোন ও ভিডিও ক্যামেরাসহ বহু যন্ত্র উদ্ভাবন করেন যা
বিংশ শতাব্দির জীবনকে প্রভাবিত করেছে। বিজ্ঞানীদের ইতিহাসে তিনি একজন উল্লেখযোগ্য বিজ্ঞানী। তার নিজের নামে ১০৯৩টি মার্কিন পেটেন্ট সহ ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য ও জার্মানির পেটেন্ট রয়েছে।
টেলিযোগাযোগ খাতে তার উদ্ভাবনের জন্য তিনি সর্বস্বীকৃত। তার উদ্ভাবনের মধ্যে ভোট ধারনকারি যন্ত্র, স্টক টিকার,বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যাটারী, বৈদ্যুতিক শক্তি, ধারনযোগ্য ছবি ও সংগীত।
তিনি জীবনের প্রথম দিকে টেলিফোন অপারেটর হিসেবে কাজ করেন। ব্যবসা বানিজ্য, কারখানা ও বাসাতে বিদ্যুত শক্তি উৎপাদন ও বন্টনের ধারনা তার হাত দিয়ে শুরু হয় , যা শিল্পজগতের উন্নয়নে একটা যুগান্তকারি ঘটনা।নিউইয়র্কের ম্যানহাটন দ্বীপে প্রথম বিদ্যুত কেন্দ্র স্হাপিত হয়।
তার পিতার নাম স্যামুয়েল অগডেন এডিসন ও মাতার নাম ন্যানসি ম্যাথিউস এলিয়েটর।
তিনি ছিলেন তার পিতামাতার সপ্তম ও সর্বশেষ সন্তান। ১৮৭১ সালের ২৫শে ডিসেম্বর তিনি মেরি স্টিলওয়েলকে বিয়ে করেন। তাদের ত…

স্রেয়া ঘোষালের গান

গান- রূপকথারা
এলবাম- অপরাজিতা তুমি
শিল্পি- স্রেয়া ঘোষাল
গীতিকার- সান্তানু মৈত্র

কথা-
শহরে হঠাৎ আলোচলাচল, জোনাকি নাকি স্মৃতিদাগে
কাঁপছিল মন, নিরালা রকম ডাকনাম নামল পরাগে |

কে হারায় ইশারায়
সাড়া দাও ফেলে আসা গান
রূপকথারা রা রা রা রা
চুপকথারা রা রা রা রা
ফুরফুরে এক রোদের জন্মদিন !

মন পাহারা রা রা রা রা
বন্ধুরা রা রা রা রা
আজ খোলা আলটুসি ক্যান্টিন !

বোবা ইমারত, অকুলানো অনুরাগে, শালিকের সৎ অনুরাগে,
বলেছে আবার জানালার ধার, ধার-বাকি হাতে চিঠি জাগে !

কে হারায় ইশারায়
সাড়া দাও ফেলে আসা গান
রূপকথারা রা রা রা রা
ফুরফুরে এক রোদের জন্মদিন !

মন পাহারা রা রা রা রা
বন্ধুরা রা রা রা রা
আজ খোলা আলক্যান্টিন !
রোদেলা বেলার, কবিতা খেলার, শীত- ঘুম বইয়ের ভাঁজে,
বেসামাল ট্রাম, মুঠোর বাদাম, জ্বালাতনে গাংচিলটাযে।
ঝরে একাকার, বালিধুলো তার, তুলো তুলো বেখায়াল।

হঠাৎ শহর, পুরনো মোহর, মহড়া সাজানো আবডালে ।
লজ্জা চিবুক, বানবাসি সুখ, শুক-সারি গল্প নাগালে।

কে হারায়  ইশারায়
সাড়া দাও ফেলে আসা গান
রূপকথারা রা রা রা রা
চুপকথারা রা রা রা রা
ফুরফুরে এক রোদের জন্মদিন !

মন পাহারা রা রা রা রা
বন্ধুরা রা রা রা রা
আজ খোলা আলটুসি ক…

তাজহাট জমিদার বাড়ি

তাজহাট জমিদার বাড়িটি রংপুর জেলার অদূরে তাজহাট নামক স্হানে অবস্হিত।
এটি একটা ঐতিহাসিক প্রাসাদ যা বর্তমানে যাদুঘর হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এটি রংপুর শহর থেকে দক্ষিনপূর্ব দিকে ৩ কিলোমিটার দূরে অবস্হিত।  পর্যটকদের কাছে এটি একটা আকর্ষনিয় স্হান।

ইতিহাস- বিংশ শতাব্দির শুরুর দিকে বাড়িটি মহারাজা কুমার গোপাল লাল রায় নির্মান করেন।
তিনি ছিলেন হিন্দু ও পেশায় ছিলেন একজন স্বর্নকার। মহারাজা গোপাল রায়ের মনোরোম মুকুটের জন্য এলাকাটি তাজহাট নামে পরিচিতি লাভ করে আসছে। মহারাজা গোপাল রায়ের মনোরোম মুকুটের জন্য এলাকাটি তাজহাট নামে পরিচিতি লাভ করে আসছে। ভবনটি ১৯৮৪ সাল থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত রংপুর হাইকোর্ট বাংলাদেশ সুপ্রীম একটা শাখা হিসেবে ব্যবহৃত হয়।
বাংলাদেশ সরকার ১৯৯৫ সালে ভবনটিকে প্রত্নতাত্তিক স্হাপনা হিসেবে ঘোষনা করে।
    ২০০৫  সালে বাংলাদেশ সরকার এই স্হাপনার ঐতিহাসিক গুরুত্ব অনুভব করে   রংপুর যাদুঘরটি এই ভবনের দোতালায় নিয়ে আসে।   এই বাড়ির সিড়িগুলো মার্বেল পাথরের তৈরী।
যাদুঘরে রয়েছে বেশ কয়েকটা প্রদর্শনী কক্ষ এবং এতে রয়েছে দশম ও একাদশ শতাব্দির টেরাকোটা শিল্প কর্ম।  এখানে আরো রয়েছে সংস্কৃতি ও আরবী ভাষায় লেখা বে…

মোমের গোলাপ তৈরী

ঘরে বসে মোম দিয়ে সহজেই গোলাপ তৈরী করা যায়। দেখে জটিল মনে হলেও আসলে তেমন জটিল নয়। এটি তৈরী করতে উপকরন কম লাগে।




এটা তৈরী করতে লাগবে প্রয়োজনীয় উপকরন -



গোলাপি রংয়ের গলানো কিছু মোম
সাদা রংয়ের মোমবাতি
মোটা রশি যা সলতে হিসেবে ব্যবহার হয়
ফুটন্ত গরম পানি
একটা লাঠি
ছুরি



তৈরী পদ্ধতি
একটা বাটিতে গোলাপি রংয়ের মোম ও সাদা রংয়ের কোরানো মোম নিন।
খেয়াল রাখতে হবেযে গোলাপী রংয়ের মোমের অংশ যেন বেশী থাকে।

এরপর একটা গামলায় গরম পানি নিয়ে মোমের বাটির উপর বসিয়ে
দেন, যেন মোম গলে যায়।  মাঝে মাঝে লাঠি দিয়ে মোম দুটিকে মিশিয়ে দিতে হবে।
একটা কাঠের বোর্ডের উপর গলানো মোম ঢেলে ছোট ছোট বৃত্ত তৈরী
করুন |   এই বৃত্তগুলোর শেপের উপর নির্ভর করবে গোলাপের পাপরিগুলোর সাইজ কেমন হবে।
বড় গোলাপ করতে চাইলে বৃত্তগুলোও বড় আকারের করতে হবে।
কমপক্ষে ৬টির কমে বৃত্ত তৈরী করা যাবেনা।  তা নাহলে গোলাপ দেখতে সুন্দর লাগবেনা।
মোমের বৃত্তগুলো একটু নরম থাকতে থাকতে ছুরি দিয়ে তুলে ফেলুন।
ছবির মতো করে রশির গা ঘেষে গোলাপের পাপড়ির মতো করে প্যাচাতে থাকুন।
এবার দেখুন গোলাপের মতো লাগছে কিনা।

এবার চাইলে যেকোনো ফুলদানিতে রাখতে পারেন।

মেরিকুরি

মেরিকুরি ছিলেন ফরাসি বিজ্ঞানী। তার ডাক নাম মানিয়া। তেজস্ক্রিয়তা নিয়ে গবেষনার জন্য তিনি নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন। পৃথিবীতে তিনি ই একমাত্র মহিলা যিনি দুবার  দুটি বিষয়ে( পদার্থ ও রসায়ন)        নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন।


তিনি ১৮৬৭ সালের ৭ই নভেম্বর পোল্যান্ডের ওয়ারসাতে জন্মগ্রহন করেন।তার পুরো নাম মেরি স্কলোডসকা কুরি। তার  বাবা ব্লাদিয়াভ শক্লোদোভস্কি ছিলেন নামকরা কলেজের পদার্থের অধ্যাপক।
তার মা ছিলেন নামকরা স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা। তার বাবা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে প্রতি শনিবার সন্ধ্যায় বিজ্ঞান ও সাহিত্যের আসর বসানেন।   একসময় তার পরিবারে খুব আর্থিক সংকট দেখা দিলে তিনি এক রুশ আইনজীবির বাসায় গভর্নেসের চাকরী নেন। তিন বছর তাকে চাকুরী করতে হয়।
তার দুবোনের মধ্যে শর্ত ছিল একজনের পড়াশুনা শেষ করে অপরজনের পড়ায় খরচ যোগানো।
তখন তার বড় বোন ব্রোনিয়া ডাক্তারি পাস করে। শর্তানুযায়ি , মেরি তখন তার বোনের সহযোগিতায় বিজ্ঞানে উচ্চ শিক্ষার জন্য অস্ট্রিয়ার অধিনে ক্রাকো বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যান  | সেখানে তিনি বিজ্ঞান ক্লাসে অংশগ্রহন করতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সচিব তাকে অসম্মতি জানান ,বলেন বিজ্ঞান মেয়েদের জন্য নয়। পরে তিনি…

রবীন্দ্র সংগীত

রবীন্দ্র সংগীত

'সুন্দর বটে তব অঙ্গতখানি, তারায় তারায় খচিত'

গীতিকার-  রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
সুরকার- রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
 বছর- ১৯২২
কথা
সুন্দর বটে তব অঙ্গতখানি তারায় তারায় খচিতখচিত
স্বর্নে রত্নে শোভন শোভন বর্নে বর্নে রচিত ||

খড়গ তোমার আরো মনোহর লাগে বাঁকা বিদ্যুতে আঁকা সে,
গরুড়ের পাখা রক্ত রবির রাগে যেনগো অস্ত আকাশে |

জীবন শেষের শেষ জাগরনসম ঝলসিছে মহাবেদনা-
নিমষে দহিয়া যাহা কিছু আছে মম তীব্র ভীষন চেতনা |

সুন্দর বটে তব অঙ্গতখানি তারায় তারায় খচিত
খড়গ তোমার, হে দেব বজ্রপাণি,চরম শোভায় রচিত |

ফেলে দেওয়া জিনিস দিয়ে গয়না তৈরী করুন

ফেলে দেওয়া জিনিস দিয়ে হার, দুল, ব্রেসলেট ইত্যাদি তৈরী করতে পারেন। যেমন তার দিয়ে হার, কয়েন দিয়ে দুল, কাগজের দুল, জিনস দিয়ে ব্রেসলেট, বোতাম দিয়ে নেক পিস, লুডোর ছক্কা দিয়ে দুল,চাবি দিয়ে হার, সিডি দিয়ে জুতা ইত্যাদি। সার্কিটের মোটা তারকে রং করে হাতের আংগুলের মধ্য পেচিয়ে গোল করেএকটির মধ্যে আরেকটি ঢুকিয়ে তৈরী করুন ট্রেন্ডি হার। পুরানো কয়েন থাকলে তৈরী করতে পারেন দুল। কয়েনের মাথায় ছিদ্র করে পুরানো দুলের পুতির সাথে লাগিয়ে দিতে পারেন।
কাগজের দুল- পাতলা পিজবোর্ডেলাগিয়ে পছন্দমত কাগজ আঠা লাগিয়ে মুড়ে দিন।
এরপর এটিকে ফলের মত আকৃতিতে সেলাই করে নিতে হবে।এরপর পুরনো কানের দুলের উপরের অংশের সাথে লাগিয়ে নিন।আর তৈরী হয়ে গেল কানের দুল।
ব্রেস্টলেট তৈরী-  পুরনো জিনসকে হাতের মাপমতো কেটে টুকরো করে নেন এবং এতে পুতি বা স্টোন বসিয়ে সেলাই করে নিন। এবার টুকরাগুলির একপ্রান্তে একটি বোতাম ও আরেক প্রান্তে একটি বোতামঘর বানিয়ে নিন। আপনার তৈরী হয়েগেল ব্রেসলেট। নেকপিস তৈরী- পুরানো বোতাম নিন এবং একটা চেনের মধ্যে গেথে দিন, আর তৈরী হয়ে গেল আপনার নেকপিস |
লুডোর ছক্কা দিয়ে দুল- লুডোর ছক্কার উপর একটা স্টিক আঠা  দিয়ে লাগিয়ে নিন|আপ…

লাল রং তৈরির ইতিহাস

লাল রং দীর্ঘ তরঙ্গ দৈর্ঘ বিশিষ্ঠ একটা রঙ। অতি প্রাচীনকাল থেকেই লাল রঙের ব্যবহার হয়।
দক্ষিন আফরিকার একটা গুহা থেকে প্রত্নতাত্তিক শিলা দেখে প্রমানিত হয়যে, ১,৭০০০০ থেকে ৪০,০০০ বছর আগে মানুষলাল রংয়ের কাদার সাথে আয়রন অক্সাইড মিশিয়ে তাদের শরীরে রং
করতো।আর এরকম ব্যবহার হতো আধুনিক প্রস্তর যুগে। চীনের বেইজিংয়ের ঝুকুদিয়ান গুহায় লাল হেমাটিট পাউডারের গুড়ার ব্যবহারের প্রমান পাওয়া যায়, যা ৭০,০০০ বছর আগের।
লাল, কালো এবং সাদা রং ছিল অতীতের প্রথমদিকের ব্যবহার করা
রং। মাদ্দার নামক একধরনের গাছের মূল থেকে লাল রং তৈরী করা হছিল।  প্রাচীন মিশরীয়দের সাথে লাল রং ঐতিহ্য হিসেবে ছিল। প্রাচীন মিশরীয় রমনীরা লাল অকরি তাদের চিবুক ও ঠোট রাঙাতে রূপসজ্জায় ব্যবহার করতো। তারা চুল ও নখ রাঙাতে মেহেদি ব্যবহার করতো। প্রাচীন মিশরীয়রা রুবিয়া গাছের শিকড় দিয়ে রং তৈরী করতো যা পরবর্তীতে আলিজেরিন নামে পরিচিতি পায়।
লাল লেড প্রাচীন পারসিয়ান ও ভারতে চিত্র আঁকতে ব্যবহৃত হতো। প্রাচীন মহেন্জদারো সভ্যতায় তার প্রমান পাওয়া যায়। আজকাল এশিয়ার অনেক দেশে বিয়ের পোষাক লাল রংয়ের হওয়া
একটা ঐতিহ্য।

আলুটিলার রহস্যগুহা

বাংলাদেশের খাখাগরাছড়ি জেলার মাটিরাংগা উপজেলায় আলুটিলা পর্যটন কেন্দ্রে একটা রহস্যময় গুহা আছে। এটা খাগরাছড়ি হতে ৭ কিলোমিটার পশ্চিমে মাটিারাংগা উপজেলায় অবস্হিত।
স্হানিয় লোকজন একে হাকড় বা দেবতার গুহা বলে। তবে এটি আলুটিলা পর্যটন কেন্দ্রে অবস্হিত বলে এটা আলুটিলা গুহা নামেই পরিচিত।এখানে একটা সুন্দর পিকনিক স্পট আছে।এখানকার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য মন ছুয়ে যায়। আলুটিলা খাগড়াছড়ি জেলার সবচেয়ে উচু পর্বত। টিলা নাম হলেও এটি আসলে পর্বত। এখান থেকে খাগরাছড়ি শহরের অনেকটা দেখা যায়। এখানের সবুজ প্রকৃতি, পাহাড়, আকাশ আর মেঘের মিতালি এক মনোরোম আবেশ তৈরী করে মনে। ঐতিহাসিকভাবে জানা যায় আগে এই পাহাড়ের নাম ছিল আরবারী পর্বত। ২য় বিশ্বযুদ্ধের পর এখানে খাদ্যাভাব দেখা দিলে এ পাহাড় থেকে আলু সংগ্রহ করে মানুষ জীবন ধারন করে, সেই থেকে এর নাম আলুটিলা হিসেবে পরিচিতি পায়।
আলুটিলা পর্যটন কেন্দ্রে প্রবেশ- আলুটিলা রহস্যগুহায় যেতে হলে পর্যটন কেন্দ্রে নির্ধারিত টিকেট করতে হয়। প্রবেশের পরেই দুটি বিশাল বটবৃক্ষ চোখে পড়বে। এরপর ডান ও বাম দিকে দুটো রাস্তা গেছে।বাম দিকের রাস্তা দিয়ে রহস্য গুহায় যেতে হয়। ডানদিক দিয়ে যে পথ গেছে , সেদিক দিয়ে …

বাঁশ ও বেতের শিল্প

বাঁশ ও বেতের শিল্প বাংলাদেশের একটি প্রাচীন শিল্প। অাগে বাঁশ ও বেতের গৃহস্হালি তৈরীর জন্য আলাদা এক সম্প্রদায় ছিল, তাদের বলা হতো হাঁড়ি সম্প্রদায়। এ শিল্প বিশেষ এলাকা ভিত্তিক হলেও মোটামোটি সারা দেশ জুড়েই ছড়িয়ে আছে। বাঁশ হচ্ছে এক ধরনের বড় ঘাস শ্রেনীর।

কয়েক ধরনের বাঁশের মধ্যে শুধু মাকলা বাঁশ দিয়ে গৃহস্হালি উপকরন ও সৌখিন জিনিসপত্র বানানো সম্ভব। সারা দেশ জুড়েই বাঁশ শিল্প ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। সহজলভ্য হওয়ায় এ পন্যের গ্রহনযোগ্যতাও অনেক বেশী। বাংলাদেশে উচ্চ, মধ্য ও নিম্ন সব পরিবারেই এর ব্যবহার দেখা যায়।

শহরের থেকে গ্রামেই বাঁশের তৈরী উপকরনের চাহিদা ও ব্যবহার বেশী। বাঁশের তৈরী বিভিন্ন উপকরন যেমন, ডালা, কুলা, ঝাড়ু, খলই, ঝাকা, চালুনি, চাতাল, মাথাল, পলো, ছিপ, মাছ ধরার চাই, বাঁশের টুকরি, হাতপাখা ইত্যাদি।

এছাড়া নানাপ্রকার শৌখিন জিনিস তৈরী করা হয় যেমন, ফুলদানি, বুকসেলফ, মোড়া, ওয়ালম্যাট, শোপিস, চামচ, খূন্তি, কলমদানি, খেলনা সামগ্রি ইত্যাদি। চেয়ার, টেবিল, সোফা, ডাইনিং টেবিল, অফিস পার্টিসন, আলমারী ইত্যাদি তৈরীতে গোল্লা বেতের প্রয়োজন। দেশে গোল্লা বেতের সরবরাহ কম হওয়াতে ভারত,মায়ানমার ও ইন্দোনেশিয়া থেকে এই বেত …

সক্রেটিস

সক্রেটিস ছিলেন এক জন মহান দার্শনিক ছিলেন। তার জন্ম হয়েছিল খ্রীস্টপূর্ব ৪৬৯ সনে গ্রীসের এথেন্সে। তার দার্শনিক আদর্শ ও মূল্যবোধ দুই হাজারের ও বেশী সময় ধরে পাশ্চাত্য সভ্যতা, দর্শন ও সংস্কৃতিকে প্রভাবিত করেছে। সক্রেটিসের জীবন ও দর্শন সম্পর্কে তেমন কিছু জানা যায়না। তার  জীবন ও দর্শন সম্পর্কে তিনটি উৎস উল্লেখযোগ্য, প্লেটোর ডায়ালোগ, এরিস্টোফেনিসের নাটক ও
জেনোফোনের ডায়ালগ। সক্রেটিস নিজে কিছু লিখেছেন এরকম কোনো প্রমান পাওয়া যায়না।
প্লেটোর বর্ননা থেকে জানা যায় সক্রেটিসের বাবার নাম সফ্রোনিস্কাস,আর তিনি একজন স্হপতি ছিলেন। তার মায়ের নাম ফিনারিটি, তিনি একজন ধাত্রী ছিলেন। তার স্ত্রীর নাম জ্যানথিপ।
তার সংসারে খুব অভাব অনটন। সংসারের অভাব অনটন ভুলতে তিনি বেশীরভাগ সময় দার্শনিক আলোচনায় নিজেকে নিয়োজিত রাখতেন। সক্রেটিস তার দর্শন প্রচারের জন্য কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে পারেননি। হাটবাজার , রাস্তাঘাট যেকোনো জায়গায় তিনি সব বয়সের মানুষের সাথে বিনামূল্যে দার্শনিক আলোচনা করতেন। সুফিদের মতো অর্থের বিনিময়ে শিক্ষা করা তিনি ঘৃনা করতেন। তিনি বলতেন, আমি জ্ঞানী  নই, জ্ঞানুসারী মাত্র। "একটি জিনিসই আমি শুধু জা…

মুড়াপাড়া জমিদার বাড়ী

মুূড়াপাড়া জমিদার বাড়ীটি নারায়নগন্জের রূপগন্জ থানায় অবস্হিত। এটার দূরত্ব ঢাকা থেকে ২৫ কি.মি এবং এটা নরসিংদি রোডে অবস্হিত। ১৮৮৯ সালে জমিদার রামরতন ব্যানার্জী ৪০ হেক্টর জমির উপর নির্মান করেন। তিনি ছিলেন নাটোর স্টেটের কোষাধ্যখ্খ এবং তিনি সততার জন্য উচ্চ পদে উন্নীত হন। তিনি বাড়ীটির ভিত্বি ও কাঠামো তৈরী করেন। তার মৃত্যুর পর তার পুত্র প্রতাপ চন্দ্র ব্যানার্জী একই বছর তার পুরানো বাড়ীর পেছনে আরেকটি প্রাসাদ তৈরী করেন। বিশাল জমিদার বাড়ীটিতে একশতর উপর কখ্খ রয়েছে। আর সবগুলো ঘরই কারুকার্য করা।
আর এ জমিদার বাড়ীটিতে আছে অতিথিশালা, কাছারিঘর, নাচঘর,
বৈঠকখানা, পূজামন্ডপ, ভাড়ার ঘর সহ বিভিন্ন অংশ। জগদিশ চন্দ্র ব্যানার্জী ১৯০৯ সালে এই ভবনটি সম্পন্ন করেন এবং তিনি নিজেই একজন জমিদার হয়ে ওঠেন। জগদিশ চন্দ্র ব্যানার্জী একজন জনপ্রিয় ব্যক্তি ছিলেন। তিনি দিল্লীর দুইবার কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত হন।
তিনি প্রজাদের জন্য অনেক কিছু তৈরী করেছিলেন। তিনি প্রজাদের প্রতি অনেক কঠোর ও ছিলেন।
তিনি ১৯৪৭ সালে দেশ বিভক্তির সময় কলকাতা চলে যান। কোনো প্রজা যদি সময়মতো খাজনা না দিত, তাহলে তিনি তাদের মাথার চুল ছেটে দিতেন। আবার অনেক সম…

মনিপুরী তাতশিল্প

মনিপুরী তাতশিল্প বাংলাদেশের প্রাচীন ঐতিহ্য।  মনিপুরীরা বাংলাদেশের সিলেট বিভাগে বসবাস করে। আঠারশ শতক থেকে মনিপুরীরা এখানে বসবাস করছে। মনিপুরী নারীদের হাতেবোনা তাতের জন্য অনেক সুখ্যাতি রয়েছে।   শ্রীমন্গল ও মৌলভীবাজার জেলার কমলগন্জের ৬০টি গ্রাম মনিপুরী তাতশিল্পের জন্য বিখ্যাত। মনিপুরী নারীদের তাতশিল্পকে তাদের সমাজে বিয়ের খেত্রে পূর্ব অভিগ্গতা হিসেবে ধরা হয়।    মনিপুরীদের বস্ত্র তৈরীর কল তিন ধরনের যেমন কোমরে বাঁধা তাত,
হ্যান্ডলুম তাত ও থোয়াং।  মনিপুরীরা এই তাতগুলো দিয়ে লেডিস চাদর, মাফলার, তোয়ালে,শাড়ী, গামছা, মশারী, স্কার্ফ,টেবিল ক্লথ ইত্যাদি। নিজেদের প্রয়োজন মিটাতেই মনিপুরী সম্প্রদায়দের মধ্যে তাত শিল্প গড়ে উঠেছিল। এখন বাংগালী সমাজেও ওদের তাত শিল্পের সামগ্রী ব্যাবহৃত ও সৌখীন্য।
মনিপুরীদের তৈরী নকশী ওড়না, নকশী শাড়ী ও ডিজাইনের শীতের চাদর বাংগালী সমাজে খুবই নন্দিত। গ্রীষ্মকালে  মনিপুরীরা তুলার সূতা ব্যাবহার করে।  এবং শীতকালে তারা
উল ও পলেস্টারের সূতা ব্যাবহার করে। বর্তমানে বাজার থেকে তারা সূতি সূতা কিনে।
মনিপুরীরা খুবই আকর্ষনীয় রংয়ের ফানেক তৈরী করে। প্রতদিন পরার জন্য তারা সমতল …

জালালউদ্দীন.মুহাম্মদ রুমী

জালালুদদীন মুহাম্মদ রুমী ১২০৭ সালে আফগানিস্তানের বালখ নামক জায়গায় জন্ম গ্রহন করেন।
তিনি ছিলেন একজন ফার্সি কবি, ইসলামি ব্যাক্তিত্ব,সুফি, ধর্মতাত্তিক, অতীন্দ্রবাদী, আইনগ্গ |
তিনি মধ্য এশিয়া, দক্খিন এশিয়া, গ্রীক, তুর্কির সব মুসলিমদের মধ্যে ব্যাপক সমাদৃত ।
তার  সারা বিশ্বে বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদ করা হয়েছে। তার কবিতাগুলোতে তুর্কি, আরবী ও গ্রীক    ভাষা ব্যাবহার করেছেন। তার লেখা মসনবী ফার্সী ভাষায় লেখা সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ কাব্য গ্রন্থ।
তিনি নাজিমউদ্দীন কোবরার বংশধর ছিলেন।
তিনি জীবনের বেশিরভাগ সময় সালতানাত ও পারস্যে কাটিয়েছেন।তার পিতা ছিলেন বাহাউদ্দীন ওয়ালাদ। তার পিতাও আইনগ্গ, ধর্মতাত্তিক এবং অতীন্দ্রবাদী খাতুন।
রুমীর মা ছিলেন মুইমিনা খাতুন। রুমীর মা ইসলাম ধর্মের হানাফি, মাজহাবী প্রচারনা করতেন।
রুমি গজল রচনা করতেন যা দেওয়ানি ই কবির বা দেওয়ান শামস তাবরিজিতে সংগৃহীত হয়।
তার শিখ্খার বিষয় বস্তুু ছিল তাওহিদ শিখ্খা। রুমির কাব্যকে দুটি প্রধান ভাগে ভাগ করা হয়েছে চতুষ্পদী  ষ্লোক ও গজল। গাদ্যসমূহকে পত্র, প্রবন্ধ ও সাতটি ধর্মাপদেশে ভাগ করা হয়েছে।
তার উল্লেখযোগ্য কাব্য হচ্ছে মাতনাওয়ে মানিউয়ি…

মহেড়া জমিদার বাড়ি

মহেড়া জমিদার বাড়ী টাংগাইলের মির্জাপুর উপজেলায় অবস্হিত।
বর্তমানে এটি পুলিশ একাডেমি হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।১৮৯০ সালে মহেড়া জমিদার বাড়ীর পত্তন ঘটে।
বাড়ীটি স্পেনের করডোভা নগরির আদলে গঠিত হয়েছিল। ১৯৭২দ্য সালে বাড়ীটি পুলিশ ট্রেনিং স্কুল হিসেবে উদ্যোগ গ্রহন করা হয়। ১৯৯০ সালে এটিকে পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারে উন্নীত করা হয়।
বিশাখা সাগর নামে এক বিশাল দীঘি আছে জমিদার বাড়ীর সামনেই।
বাড়ীর প্রবেশ পথে রয়েছে দুটি সুরম্য গেট। বাড়ীটির পিছনে আছে পাসরা ও রানী পুকুর।
বাড়ীতে রয়েছে সুন্দর সুন্দর ফুলের বাগান। বাড়ীটিতে বিশাল আমের বাগান রয়েছে।
বিন্দু সাহা, বুদ্দু সাহা, হরেন্দ্র সাহা, কালীচরন সাহা এই জমিদারীর অংশ কিনে নেন।


সাহারা ছিলেন ব্যবসায়ী শ্রেনী। সাহারা কলকাতার ডালের ব্যবসায়ী ছিলেন।
সাহাদের পরবর্তী বংশধরগন রায় চৌধুরী পদবী লাভ করেন। মহেড়া জমিদার বাড়ীটি প্রায় ১১৭৪ শতাংশ জমির উপর গঠিত।
মহেড়া জমিদার বাড়ীটি চারভাগে বিভক্ত। এদের নাম মহারাজা লজ, আনন্দ লজ, চৌধুরী লজ, কালীচরন লজ।বাড়ীটিতে প্রবেশের জন্য দুটি সিংহ দরজা রয়েছে।
ভবনগলোর কার্নিশ আর প্যানেল গুলো খুবই মনোরোম আর চোখ ধাধানো।
এ বাড়ীতে …

বেবি নাজনিন ও তার গান

বেবি নাজনিন বাংলাদেশের একজন জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী।তিনি প্রায় ১০০ ছায়াছবিতে গান গেয়েছেন।
তিনি ব্ল্যাক ডায়মন্ড নামে পরিচিত। তিনি ১৯৯৩ ও ২০০৩ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন।
তিনি আগে রাজশাহী বিভাগে ভলিভল খেলোয়ার হিসেবে ছিলেন।১৯৮৭ সালে তার প্রথম আধুনিক গানের এলবাম বের হয়। ২০১৪ সালে তার ৫০ তম গানের এলবাম বের হয়। তার বোনের নাম লিনি সাবরিন।  তার অনেক জনপ্রিয় গান আছে, তারমধ্যে এটা একটা ভাল গান।
'ঐ রংধনু থেকে কিছু রং এনে দাওনা '
শিল্পী- বেবী নাজনিন
সুরকার- শেখ ইশতিয়াক
গীতিকার- শেখ ইশতিয়াক

কথা-
ঐ রংধনু থেকে কিছু কিছু রং এনে দাওনা
তুমি মনের মাধুরী সাথে মিশিয়ে
আমাকে আপন করে নাওনা॥
কতদিন বলেছি বকুলের ফুল এনো মালা গাঁথবো
কতদিন সেধেছি শিশিরে ভেজা ঘাসেঁ আচল ছড়াবো
তুমি এমন কেন তোমারকি সাধ হয়না ॥
তুমি কী দেখছো আকাশ কেমন করে মেশে সাগরে
তুমি কী শুনেছো আমার যত গান তোমাকে ঘিরে।
তুমি এমন কেন বুঝেও কী কিছুই বোঝনা ॥


হেনরি ডুনান্ট

হেনরি ডুনান্ট একজন সুইস সমাজকর্মী ও ব্যবসায়ী ছিলেন।তিনি ৮ই মে, ১৮২৮ সালে জন্মগ্রহন করেন। তিনি ১৮৫৯ সালে ইতালিতে ব্যবসায়িক কাজে যান এবং সেখানে তিনি সালফেরিনো যুদ্ধ পরিদর্শন করেছেন। তিনি সালফেরিনোর যুদ্ধের স্মৃতি নিয়ে সালফেরিনোর স্মৃতি নামে বই রচনা করেছিলেন। এটি তাকে ১৮৬৩ সালে আন্তজার্তিক রেডক্রস সোসাইটি কমিটি গঠনে অনুপ্রানিত করে।
১৮৬৪ সালে ডুনান্টের ধারনা নিয়ে জেনেভা কনভেনসন গঠিত হয়।১৮৫৯ সালের সালফেরিনো যুদ্ধে প্রায় ৪০০০০ সৈন্য আহত ও মারা যায়,তখন তাদের চিকিৎসা সেবা দেয়ার কেউ ছিলনা।
হেনরি তখন পাশের গ্রামের পাদরিদের কাছে তাদের সেবা দেওয়ার অনুরোধ জানান।
তার কথায় পাদরিরা তখন গ্রামের লোকজনের কাছে আহত সৈনিকদের সেবার জন্য আবেদন করে, এতে পুরুষরা রাজী না হলেও নারিরা যেতে রাজী হয়েছিল।সোখান থেকে ফেরার পর তিনি মানব কল্যানে কাজ শুরু করেন। ১৯০১ সালে তিনি শান্তিতে নোবেল পান। হেনরি মানব কল্যানে তার সব সম্পত্তি বিলিয়ে দিয়েছিলেন।১৬টি দেশ নিয়ে রেডক্রস প্রথম যাত্রা শুরু করে, এখন এর সদস্য সংখ্যা
১৮৮ | এটি বর্তমানে পৃথিবীর সর্ববৃহত সেচ্ছাসেবী ও মানবতাবাদী প্রতিষ্ঠান।
রেডক্রস সাদাকালো, হিন্দু ম…

বালিয়াটি জমিদার বাড়ী

বালিয়াটি জমিদার বাড়ীটি ঢাকা বিভাগের মানিকগন্জ জেলার সাটুরিয়া উপজেলার বালিয়াটি গ্রামে অবস্হিত। এটি ১৯ শতকে নির্মিত, বাংলাদেশের একটি ঐতিহ্যবাহী প্রাসাদ।
এটি বালিয়াটি জমিদার বাড়ী হিসেবে পরিচিত।জমিদার বাড়িটি সাতটি স্হাপনা নিয়ে গঠিত।
এ ভবনটির কেন্দ্রীয় ব্লকটি যাদুঘর হিসাবে সংরক্খিত। ভবনটির বিভিন্ন অংশ বিভিন্ন উত্তরিধিকার দ্বারা নির্মিত হয়েছে।
ইতিহাস- (বালিয়াটি জমিদার বাড়ী )-
এ  জমিদার বাড়ীটি গোবিন্দ রাম সাহা প্রতিষ্ঠিত করেন।তিনি ১৮০০ সালের মাঝামাঝি  দিকে ব্যবসা করতো জানা যায় বাড়ীটি বাংলা ১৩০০ সালের ১লা বৈশাখ গৃহে প্রবেশ করে। এ বাড়ীর ইতিাস প্রায় দেডশ বছরের।
ভবনটি ৫.৮৮ একর জমির উপর নির্মিত।
ভবনটির আয়তন ১৬.৫৫৪ বর্গমিটার।বাড়ীটির সামনে একটি বড় পুকুর রয়েছে। পুকুরটা বর্তমানে জরাজীর্ন হয়ে আছে। এখানে ৭টি ভবনে মোট ২০০টি কক্খ রয়েছে।  এই জমিদার বাড়ীর প্রবেশদ্বার নতুন করে নির্মান করা হয়েছে। এ বাড়ীর প্রথম সারিতে ৪টা ভবন রয়েছে। মাঝখানের ভবন দুটো দুই তালা ও ভবনের কিনারার দুটো তিনতালা বিশিষ্ঠ। এর একটি প্রাসাদে আগে কলেজ ছিল, এখন তা পরিত্যক্ত রয়েছে।এর একটি ভবন দর্শকের জন্য উন্মুক্ত…

পাটের তৈরী পন্য

পাট শিল্প বাংলাদেশের একটি বহুমুখী শিল্প। রফতানিতে পাটশিল্প বড় ভূমিকা পালন করছে।
রাজধানীর খামারবাড়ীর কৃষি ইনস্টিটিউটের সামনে পাটপন্যের মেলা
বসে তিন দিনের জন্য। এই মেলাতে ঢুকতেই পাটের তৈরি গেইট , সত্যি খুবই দৃষ্টি নন্দনিয়।
মেলাতে প্রদর্শিত হয়েছে নানারকমের মন মাতানো পাট পন্য। পাটের তৈরী পোশাক, পাটের ঢেউটিন, পাটপাতার চা থেকে তৈরী

পলিথিন ব্যাগ, শপিং ব্যাগ, পাটের তৈরী লান্স ব্যাগ, ট্রাভেল ব্যাগ, লেডিস ব্যাগ, লেডিস পাউস,পাাটের তৈরী শো পিস, মেয়েদের নানা অলংকার যেমন, গলার হার, কানের দুল, নাক ফুল,পার্স, খেলনা, ফুলদানি, ফুল, টিস্যুবক্স, ওয়ালমেট,ফুলের টব, দোলনা, সিকা, ঝোলানো বাতি, ঝোলানো ফুলদানি
এ্ছাড়া রয়েছে সোফা কভার, বেড শীট, জ্যাকেট, জুট সুজ ইত্যাদি।  পাটের শাড়ী, ল্যাপটপ ব্যাগ, টেবিল ম্যাট, পাটের শাড়ী,শতরন্জি ও
অন্যান্য গিফট আইটেম সহ প্রায় ১৮ থেকে ২০ জাতের পাটজাত পন্য

তৈরী করে ও বাজারজাত করে জারমাটজ লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটি নারী উদ্যক্তাদের নিয়ে কাজ করে।
জার্মান, ইউরোপসহ অনেক দেশে এ পাটপন্য রপ্তানি করা হয়।
বাংলাদেশ পাটপন্যের দেশ, সোনালী আঁশের দেশ, সোনার দেশ।
আমরা বাংলাদেশীরা যদি এসব পাটপন্য কিনে…

ফোরহেড ব্যান্ড

আজকাল হেয়ার ব্যান্ড পরা পুরাতন ফ্যাশন। এখন আর কেউ এরকম পরতে পছন্দ করেনা।
ফোরহেড ব্যান্ড এখন ফ্যাশনোবোল। মা খালারা আগে কপালে টায়রা পরতেন।
ফোরহেড ব্যান্ভ পরাই এখন বেশী ফ্যাশনোবল স্টোন দেয়া চেন, হালকা পুঁতি বা ফুলের ব্যান্ড দিয়ে ও আপনি সাজতে পারেন। যে কেউ চাইলে এরকম সাজতে পারেন। এখন এরকম ব্যান্ড অনেক জনপ্রিয়।
বন্ধুদের মাঝে আপনাকে অনুষ্ঠানে খুব ফ্যাশনেবল দেখাবে |  আপনি সাজতে পারেন ফ্লোরাল ব্যান্ড দিয়ে, ফুলের মত স্নিগ্ধতায়। নিজেকে আভিজাত্যময় করে তুলতে আপনি মুক্তো ও হীরা খচিত ব্যান্ড পরতে পারেন। বেশী ঝকমকে পরতে না চাইলে হালকা ধরনের চেইন পরতে পারেন।
সুন্দর ড্রেসের সংগে হালকা চেইন ভাল লাগবে।



রবার্ট আর্থার জুনিয়র (Robert Arthur Jr.)

রবার্ট আর্থার ছিলেন একজন আমেরিকান লেখক। তিনি ১৯০৯ সালের ১০ই নভেম্বর জন্মগ্রহ করেন। তার লেখা "মিস্টিরিয়াস ট্রাভেলার" রেডিও সিরিজ এবং" দা থ্রী ইনভেসটিগেটরস" যা বাংলায় "তিন গোয়েন্দা" নামে অনুবাদিত হয়। তার এই দুই সিরিজ খুব জনপ্রিয়তা পায়।
তিনি দুবার পদক দ্বারা সম্মানিত হন (Edgar Award) আমেরিকান মিস্টিরি লেখক হতে, বেস্ট রেডিও ড্রামার জন্য। তিনি টেলিভিশনের জন্যও সিরিজ লিখেছিলেন যেমন "দা টুইলাইট জোন" এবং "আলফ্রেড হিচকক" টিভি শো। ব্যাক্তিগত জীবন-তিনি ফিলিপাইনের ফোর্ট মিলস, কোরিগেটর আইলেন্ডে জন্ম গ্রহন করেন।
তার পিতা ছিলেন আমেরিকান সেনাবাহিনিতে ল্যাফটেন্যান্ট পদে কর্মরত। তার বাবার বদলির জন্য তার ছেলেবেলা কেটেছে বিভিন্ন জায়গায়। তিনি তার বাবার মত মিলিটারী ক্যারিয়ার পছন্দ করেননি। তিনি ১৯২৬ সালে ভার্জিনিয়ার  উইলিয়াম এন্ড মেরি কলেজে ভর্তি হন। এরপর তিনি ১৯৩০ সালে ইউনিভার্সিটি অফ মিসিগান থেকে ইংরেজী বিভাগে গ্রাজুয়েশন করেন।
গ্রাজুয়েশনের পর তিনি সম্পাদক হিসেবে কাজ করেছিলেন। পরে তিনি ১৯৩২ সালে ইউনিভার্সিটি অফ মিসিগান থেকে সাংবাদিকতা বিষয়ে এম.এ ডিগ্রী লাভ…

পাহাড়ি ফুল

বন তেজপাতা- এ গাছ ছোট আকৃতির ও শাখা প্রশাখাযুক্ত।এর বৈজ্ঞানিক নাম- Melastoma malabathricum.এর পাতা দেখতে তেজপাতার মত ,তাই একে বন তেজপাতা বলে।
এটির ফুল বেগুনী রংয়ের পাঁচ পাপড়ি বিশিষ্ঠ আর মাঝখানে হলুদ রংয়ের।
এই ফুল বর্ষাকালে বেশী ফুটে। এটি বীজ ও কাটিংয়ের মাধ্যমে বংশ বিস্তার করে।
এ ফুলের আদিনিবাস আমেরিকা।এটি আমেরিকাতে  নক্সিয়াস উইড হিসাবে পরিচিত।
এটির ফল পাকলে খাওয়া যায়। এর ফল খেতে মিষ্টি।  এর ডগার পাতা
শাক হিসেবে খাওয়া যায়।
ঔষধি গুন- এর পাতা পেটের অসুখ ও আমাশয় নিরাময়ে ব্যবহার করা যায়।


লান্টানা বৈজ্ঞানিক নাম ( Lantana Camara) এটি ছোট ঝোপাকৃতির গাছ।  এর ডালপালা ছড়ানো।এর পাতা ছোট সবুজ। এটার ফুল হলুদ, লাল ও হালকা গোলাপি রংয়ের। এর আদিবাস আমেরিকা | এ গাছের পাতা গবাদি পশুর জন্য বিষাক্ত। এটি পৃথিবীর প্রায় ৫০টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।এর ফুলগুলো ফোটার পর রং বদলায়। এর ফুল পীত থেকে কমলা, কমলা থেকে লাল রংয়ের হয়।পলিনেশন হওয়ার পর এর ফুল রং বদলায়।
এর ফল আন্গুরের থোকার মত, কাঁচা অবস্হায় সবুজ থাকে আর পাকলে গাড় বেগুনী রংয়ের হয়। এর ফল পাকলে মিষ্টি হয়। পাখী এবং অন্যান্য পশুরা এই ফল খায়। ব্যবহার- এটি আসবাবপত্র …