Skip to main content

Posts

রবার্ট আর্থার জুনিয়র (Robert Arthur Jr.)

রবার্ট আর্থার ছিলেন একজন আমেরিকান লেখক। তিনি ১৯০৯ সালের ১০ই নভেম্বর জন্মগ্রহ করেন। তার লেখা "মিস্টিরিয়াস ট্রাভেলার" রেডিও সিরিজ এবং" দা থ্রী ইনভেসটিগেটরস" যা বাংলায় "তিন গোয়েন্দা" নামে অনুবাদিত হয়। তার এই দুই সিরিজ খুব জনপ্রিয়তা পায়।
তিনি দুবার পদক দ্বারা সম্মানিত হন (Edgar Award) আমেরিকান মিস্টিরি লেখক হতে, বেস্ট রেডিও ড্রামার জন্য। তিনি টেলিভিশনের জন্যও সিরিজ লিখেছিলেন যেমন "দা টুইলাইট জোন" এবং "আলফ্রেড হিচকক" টিভি শো। ব্যাক্তিগত জীবন-তিনি ফিলিপাইনের ফোর্ট মিলস, কোরিগেটর আইলেন্ডে জন্ম গ্রহন করেন।
তার পিতা ছিলেন আমেরিকান সেনাবাহিনিতে ল্যাফটেন্যান্ট পদে কর্মরত। তার বাবার বদলির জন্য তার ছেলেবেলা কেটেছে বিভিন্ন জায়গায়। তিনি তার বাবার মত মিলিটারী ক্যারিয়ার পছন্দ করেননি। তিনি ১৯২৬ সালে ভার্জিনিয়ার  উইলিয়াম এন্ড মেরি কলেজে ভর্তি হন। এরপর তিনি ১৯৩০ সালে ইউনিভার্সিটি অফ মিসিগান থেকে ইংরেজী বিভাগে গ্রাজুয়েশন করেন।
গ্রাজুয়েশনের পর তিনি সম্পাদক হিসেবে কাজ করেছিলেন। পরে তিনি ১৯৩২ সালে ইউনিভার্সিটি অফ মিসিগান থেকে সাংবাদিকতা বিষয়ে এম.এ ডিগ্রী লাভ…
Recent posts

বেবি নাজনিন ও তার গান

বেবি নাজনিন বাংলাদেশের একজন জনপ্রিয় কন্ঠশিল্পী।তিনি প্রায় ১০০ ছায়াছবিতে গান গেয়েছেন।
তিনি ব্ল্যাক ডায়মন্ড নামে পরিচিত। তিনি ১৯৯৩ ও ২০০৩ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন।
তিনি আগে রাজশাহী বিভাগে ভলিভল খেলোয়ার হিসেবে ছিলেন।১৯৮৭ সালে তার প্রথম আধুনিক গানের এলবাম বের হয়। ২০১৪ সালে তার ৫০ তম গানের এলবাম বের হয়। তার বোনের নাম লিনি সাবরিন।  তার অনেক জনপ্রিয় গান আছে, তারমধ্যে এটা একটা ভাল গান।
'ঐ রংধনু থেকে কিছু রং এনে দাওনা '
শিল্পী- বেবী নাজনিন
সুরকার- শেখ ইশতিয়াক
গীতিকার- শেখ ইশতিয়াক

কথা-
ঐ রংধনু থেকে কিছু কিছু রং এনে দাওনা
তুমি মনের মাধুরী সাথে মিশিয়ে
আমাকে আপন করে নাওনা॥
কতদিন বলেছি বকুলের ফুল এনো মালা গাঁথবো
কতদিন সেধেছি শিশিরে ভেজা ঘাসেঁ আচল ছড়াবো
তুমি এমন কেন তোমারকি সাধ হয়না ॥
তুমি কী দেখছো আকাশ কেমন করে মেশে সাগরে
তুমি কী শুনেছো আমার যত গান তোমাকে ঘিরে।
তুমি এমন কেন বুঝেও কী কিছুই বোঝনা ॥


হেনরি ডুনান্ট

হেনরি ডুনান্ট একজন সুইস সমাজকর্মী ও ব্যবসায়ী ছিলেন।তিনি ৮ই মে, ১৮২৮ সালে জন্মগ্রহন করেন। তিনি ১৮৫৯ সালে ইতালিতে ব্যবসায়িক কাজে যান এবং সেখানে তিনি সালফেরিনো যুদ্ধ পরিদর্শন করেছেন। তিনি সালফেরিনোর যুদ্ধের স্মৃতি নিয়ে সালফেরিনোর স্মৃতি নামে বই রচনা করেছিলেন। এটি তাকে ১৮৬৩ সালে আন্তজার্তিক রেডক্রস সোসাইটি কমিটি গঠনে অনুপ্রানিত করে।
১৮৬৪ সালে ডুনান্টের ধারনা নিয়ে জেনেভা কনভেনসন গঠিত হয়।১৮৫৯ সালের সালফেরিনো যুদ্ধে প্রায় ৪০০০০ সৈন্য আহত ও মারা যায়,তখন তাদের চিকিৎসা সেবা দেয়ার কেউ ছিলনা।
হেনরি তখন পাশের গ্রামের পাদরিদের কাছে তাদের সেবা দেওয়ার অনুরোধ জানান।
তার কথায় পাদরিরা তখন গ্রামের লোকজনের কাছে আহত সৈনিকদের সেবার জন্য আবেদন করে, এতে পুরুষরা রাজী না হলেও নারিরা যেতে রাজী হয়েছিল।সোখান থেকে ফেরার পর তিনি মানব কল্যানে কাজ শুরু করেন। ১৯০১ সালে তিনি শান্তিতে নোবেল পান। হেনরি মানব কল্যানে তার সব সম্পত্তি বিলিয়ে দিয়েছিলেন।১৬টি দেশ নিয়ে রেডক্রস প্রথম যাত্রা শুরু করে, এখন এর সদস্য সংখ্যা
১৮৮ | এটি বর্তমানে পৃথিবীর সর্ববৃহত সেচ্ছাসেবী ও মানবতাবাদী প্রতিষ্ঠান।
রেডক্রস সাদাকালো, হিন্দু ম…

বালিয়াটি জমিদার বাড়ী

বালিয়াটি জমিদার বাড়ীটি ঢাকা বিভাগের মানিকগন্জ জেলার সাটুরিয়া উপজেলার বালিয়াটি গ্রামে অবস্হিত। এটি ১৯ শতকে নির্মিত, বাংলাদেশের একটি ঐতিহ্যবাহী প্রাসাদ।
এটি বালিয়াটি জমিদার বাড়ী হিসেবে পরিচিত।জমিদার বাড়িটি সাতটি স্হাপনা নিয়ে গঠিত।
এ ভবনটির কেন্দ্রীয় ব্লকটি যাদুঘর হিসাবে সংরক্খিত। ভবনটির বিভিন্ন অংশ বিভিন্ন উত্তরিধিকার দ্বারা নির্মিত হয়েছে।
ইতিহাস- (বালিয়াটি জমিদার বাড়ী )-
এ  জমিদার বাড়ীটি গোবিন্দ রাম সাহা প্রতিষ্ঠিত করেন।তিনি ১৮০০ সালের মাঝামাঝি  দিকে ব্যবসা করতো জানা যায় বাড়ীটি বাংলা ১৩০০ সালের ১লা বৈশাখ গৃহে প্রবেশ করে। এ বাড়ীর ইতিাস প্রায় দেডশ বছরের।
ভবনটি ৫.৮৮ একর জমির উপর নির্মিত।
ভবনটির আয়তন ১৬.৫৫৪ বর্গমিটার।বাড়ীটির সামনে একটি বড় পুকুর রয়েছে। পুকুরটা বর্তমানে জরাজীর্ন হয়ে আছে। এখানে ৭টি ভবনে মোট ২০০টি কক্খ রয়েছে।  এই জমিদার বাড়ীর প্রবেশদ্বার নতুন করে নির্মান করা হয়েছে। এ বাড়ীর প্রথম সারিতে ৪টা ভবন রয়েছে। মাঝখানের ভবন দুটো দুই তালা ও ভবনের কিনারার দুটো তিনতালা বিশিষ্ঠ। এর একটি প্রাসাদে আগে কলেজ ছিল, এখন তা পরিত্যক্ত রয়েছে।এর একটি ভবন দর্শকের জন্য উন্মুক্ত…

পাটের তৈরী পন্য

পাট শিল্প বাংলাদেশের একটি বহুমুখী শিল্প। রফতানিতে পাটশিল্প বড় ভূমিকা পালন করছে।
রাজধানীর খামারবাড়ীর কৃষি ইনস্টিটিউটের সামনে পাটপন্যের মেলা
বসে তিন দিনের জন্য। এই মেলাতে ঢুকতেই পাটের তৈরি গেইট , সত্যি খুবই দৃষ্টি নন্দনিয়।
মেলাতে প্রদর্শিত হয়েছে নানারকমের মন মাতানো পাট পন্য। পাটের তৈরী পোশাক, পাটের ঢেউটিন, পাটপাতার চা থেকে তৈরী

পলিথিন ব্যাগ, শপিং ব্যাগ, পাটের তৈরী লান্স ব্যাগ, ট্রাভেল ব্যাগ, লেডিস ব্যাগ, লেডিস পাউস,পাাটের তৈরী শো পিস, মেয়েদের নানা অলংকার যেমন, গলার হার, কানের দুল, নাক ফুল,পার্স, খেলনা, ফুলদানি, ফুল, টিস্যুবক্স, ওয়ালমেট,ফুলের টব, দোলনা, সিকা, ঝোলানো বাতি, ঝোলানো ফুলদানি
এ্ছাড়া রয়েছে সোফা কভার, বেড শীট, জ্যাকেট, জুট সুজ ইত্যাদি।  পাটের শাড়ী, ল্যাপটপ ব্যাগ, টেবিল ম্যাট, পাটের শাড়ী,শতরন্জি ও
অন্যান্য গিফট আইটেম সহ প্রায় ১৮ থেকে ২০ জাতের পাটজাত পন্য

তৈরী করে ও বাজারজাত করে জারমাটজ লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটি নারী উদ্যক্তাদের নিয়ে কাজ করে।
জার্মান, ইউরোপসহ অনেক দেশে এ পাটপন্য রপ্তানি করা হয়।
বাংলাদেশ পাটপন্যের দেশ, সোনালী আঁশের দেশ, সোনার দেশ।
আমরা বাংলাদেশীরা যদি এসব পাটপন্য কিনে…

ফোরহেড ব্যান্ড

আজকাল হেয়ার ব্যান্ড পরা পুরাতন ফ্যাশন। এখন আর কেউ এরকম পরতে পছন্দ করেনা।
ফোরহেড ব্যান্ড এখন ফ্যাশনোবোল। মা খালারা আগে কপালে টায়রা পরতেন।
ফোরহেড ব্যান্ভ পরাই এখন বেশী ফ্যাশনোবল স্টোন দেয়া চেন, হালকা পুঁতি বা ফুলের ব্যান্ড দিয়ে ও আপনি সাজতে পারেন। যে কেউ চাইলে এরকম সাজতে পারেন। এখন এরকম ব্যান্ড অনেক জনপ্রিয়।
বন্ধুদের মাঝে আপনাকে অনুষ্ঠানে খুব ফ্যাশনেবল দেখাবে |  আপনি সাজতে পারেন ফ্লোরাল ব্যান্ড দিয়ে, ফুলের মত স্নিগ্ধতায়। নিজেকে আভিজাত্যময় করে তুলতে আপনি মুক্তো ও হীরা খচিত ব্যান্ড পরতে পারেন। বেশী ঝকমকে পরতে না চাইলে হালকা ধরনের চেইন পরতে পারেন।
সুন্দর ড্রেসের সংগে হালকা চেইন ভাল লাগবে।



পাহাড়ি ফুল

বন তেজপাতা- এ গাছ ছোট আকৃতির ও শাখা প্রশাখাযুক্ত।এর বৈজ্ঞানিক নাম- Melastoma malabathricum.এর পাতা দেখতে তেজপাতার মত ,তাই একে বন তেজপাতা বলে।
এটির ফুল বেগুনী রংয়ের পাঁচ পাপড়ি বিশিষ্ঠ আর মাঝখানে হলুদ রংয়ের।
এই ফুল বর্ষাকালে বেশী ফুটে। এটি বীজ ও কাটিংয়ের মাধ্যমে বংশ বিস্তার করে।
এ ফুলের আদিনিবাস আমেরিকা।এটি আমেরিকাতে  নক্সিয়াস উইড হিসাবে পরিচিত।
এটির ফল পাকলে খাওয়া যায়। এর ফল খেতে মিষ্টি।  এর ডগার পাতা
শাক হিসেবে খাওয়া যায়।
ঔষধি গুন- এর পাতা পেটের অসুখ ও আমাশয় নিরাময়ে ব্যবহার করা যায়।


লান্টানা বৈজ্ঞানিক নাম ( Lantana Camara) এটি ছোট ঝোপাকৃতির গাছ।  এর ডালপালা ছড়ানো।এর পাতা ছোট সবুজ। এটার ফুল হলুদ, লাল ও হালকা গোলাপি রংয়ের। এর আদিবাস আমেরিকা | এ গাছের পাতা গবাদি পশুর জন্য বিষাক্ত। এটি পৃথিবীর প্রায় ৫০টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।এর ফুলগুলো ফোটার পর রং বদলায়। এর ফুল পীত থেকে কমলা, কমলা থেকে লাল রংয়ের হয়।পলিনেশন হওয়ার পর এর ফুল রং বদলায়।
এর ফল আন্গুরের থোকার মত, কাঁচা অবস্হায় সবুজ থাকে আর পাকলে গাড় বেগুনী রংয়ের হয়। এর ফল পাকলে মিষ্টি হয়। পাখী এবং অন্যান্য পশুরা এই ফল খায়। ব্যবহার- এটি আসবাবপত্র …