Skip to main content

Posts

Showing posts from March, 2017

ফোরহেড ব্যান্ড

আজকাল হেয়ার ব্যান্ড পরা পুরাতন ফ্যাশন। এখন আর কেউ এরকম পরতে পছন্দ করেনা।
ফোরহেড ব্যান্ড এখন ফ্যাশনোবোল। মা খালারা আগে কপালে টায়রা পরতেন।
ফোরহেড ব্যান্ভ পরাই এখন বেশী ফ্যাশনোবল স্টোন দেয়া চেন, হালকা পুঁতি বা ফুলের ব্যান্ড দিয়ে ও আপনি সাজতে পারেন। যে কেউ চাইলে এরকম সাজতে পারেন। এখন এরকম ব্যান্ড অনেক জনপ্রিয়।
বন্ধুদের মাঝে আপনাকে অনুষ্ঠানে খুব ফ্যাশনেবল দেখাবে |  আপনি সাজতে পারেন ফ্লোরাল ব্যান্ড দিয়ে, ফুলের মত স্নিগ্ধতায়। নিজেকে আভিজাত্যময় করে তুলতে আপনি মুক্তো ও হীরা খচিত ব্যান্ড পরতে পারেন। বেশী ঝকমকে পরতে না চাইলে হালকা ধরনের চেইন পরতে পারেন।
সুন্দর ড্রেসের সংগে হালকা চেইন ভাল লাগবে।



রবার্ট আর্থার জুনিয়র (Robert Arthur Jr.)

রবার্ট আর্থার ছিলেন একজন আমেরিকান লেখক। তিনি ১৯০৯ সালের ১০ই নভেম্বর জন্মগ্রহ করেন। তার লেখা "মিস্টিরিয়াস ট্রাভেলার" রেডিও সিরিজ এবং" দা থ্রী ইনভেসটিগেটরস" যা বাংলায় "তিন গোয়েন্দা" নামে অনুবাদিত হয়। তার এই দুই সিরিজ খুব জনপ্রিয়তা পায়।
তিনি দুবার পদক দ্বারা সম্মানিত হন (Edgar Award) আমেরিকান মিস্টিরি লেখক হতে, বেস্ট রেডিও ড্রামার জন্য। তিনি টেলিভিশনের জন্যও সিরিজ লিখেছিলেন যেমন "দা টুইলাইট জোন" এবং "আলফ্রেড হিচকক" টিভি শো। ব্যাক্তিগত জীবন-তিনি ফিলিপাইনের ফোর্ট মিলস, কোরিগেটর আইলেন্ডে জন্ম গ্রহন করেন।
তার পিতা ছিলেন আমেরিকান সেনাবাহিনিতে ল্যাফটেন্যান্ট পদে কর্মরত। তার বাবার বদলির জন্য তার ছেলেবেলা কেটেছে বিভিন্ন জায়গায়। তিনি তার বাবার মত মিলিটারী ক্যারিয়ার পছন্দ করেননি। তিনি ১৯২৬ সালে ভার্জিনিয়ার  উইলিয়াম এন্ড মেরি কলেজে ভর্তি হন। এরপর তিনি ১৯৩০ সালে ইউনিভার্সিটি অফ মিসিগান থেকে ইংরেজী বিভাগে গ্রাজুয়েশন করেন।
গ্রাজুয়েশনের পর তিনি সম্পাদক হিসেবে কাজ করেছিলেন। পরে তিনি ১৯৩২ সালে ইউনিভার্সিটি অফ মিসিগান থেকে সাংবাদিকতা বিষয়ে এম.এ ডিগ্রী লাভ…

পাহাড়ি ফুল

বন তেজপাতা- এ গাছ ছোট আকৃতির ও শাখা প্রশাখাযুক্ত।এর বৈজ্ঞানিক নাম- Melastoma malabathricum.এর পাতা দেখতে তেজপাতার মত ,তাই একে বন তেজপাতা বলে।
এটির ফুল বেগুনী রংয়ের পাঁচ পাপড়ি বিশিষ্ঠ আর মাঝখানে হলুদ রংয়ের।
এই ফুল বর্ষাকালে বেশী ফুটে। এটি বীজ ও কাটিংয়ের মাধ্যমে বংশ বিস্তার করে।
এ ফুলের আদিনিবাস আমেরিকা।এটি আমেরিকাতে  নক্সিয়াস উইড হিসাবে পরিচিত।
এটির ফল পাকলে খাওয়া যায়। এর ফল খেতে মিষ্টি।  এর ডগার পাতা
শাক হিসেবে খাওয়া যায়।
ঔষধি গুন- এর পাতা পেটের অসুখ ও আমাশয় নিরাময়ে ব্যবহার করা যায়।


লান্টানা বৈজ্ঞানিক নাম ( Lantana Camara) এটি ছোট ঝোপাকৃতির গাছ।  এর ডালপালা ছড়ানো।এর পাতা ছোট সবুজ। এটার ফুল হলুদ, লাল ও হালকা গোলাপি রংয়ের। এর আদিবাস আমেরিকা | এ গাছের পাতা গবাদি পশুর জন্য বিষাক্ত। এটি পৃথিবীর প্রায় ৫০টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।এর ফুলগুলো ফোটার পর রং বদলায়। এর ফুল পীত থেকে কমলা, কমলা থেকে লাল রংয়ের হয়।পলিনেশন হওয়ার পর এর ফুল রং বদলায়।
এর ফল আন্গুরের থোকার মত, কাঁচা অবস্হায় সবুজ থাকে আর পাকলে গাড় বেগুনী রংয়ের হয়। এর ফল পাকলে মিষ্টি হয়। পাখী এবং অন্যান্য পশুরা এই ফল খায়। ব্যবহার- এটি আসবাবপত্র …

নিয়াজ মোহাম্মদ চৌধুরীর গান

নিয়াজ মোহাম্মদ চৌধুরী বাঁংলাদেশের একজন বিশিষ্ট সংগীত ব্যক্তিত্ব । যারা সংগীত বোঝেন ,তাদের অনেক প্রিয় শিল্পী তিনি। তার কাছ থেকে তালিম নিয়ে অনেকেই সংগীতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন | তার লেখা একটি খুবই জনপ্রিয় গান শিল্পী নিয়াজ মোহাম্মদ চৌধুরী এলবাম- জীবনান্দ সুরকার- মোহাম্মদ শাহনেওয়াজ গীতিকার- ওসমান শওকত
কথা - জীবনান্দ হয়ে সংসারে আজো আমি সবকিছু ভুলে যেন করিলেম দেন তুমিওতো বেশ আছো,ভালই আছো। কবিতায় পড়া সেই বনলতা সেন॥ টানা টানা চোখে কালি পড়েনি কোন হাসলেও গালে টোল পড়ে এখনো কি যাদু জানে তা বিধাতা জানেন কবিতায় পড়া সেই বনলতা সেন॥ পরিপাটি বেশবাস এখনো আছে ঘটনার কোন রেশ নেইতো কাছে এভাবে সবাইকি থাকতে পারে কবিতায় পড়া সেই বনলতা সেন॥